‘কালি ও কলম’ পুরস্কার পেলেন ছয় কবি-লেখক

দশমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো তরুণদের জন্য সৃজনশীল সাহিত্য পুরস্কার ‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার’। ২০১৭ সালে পাঁচটি বিভাগে মোট ছয়জন তরুণ কবি ও লেখক এ পুরস্কার অর্জন করেছেন।

কবিতায় ‘জুমজুয়াড়ি’ ও ‘নিশিন্দা পাতার ঘ্রাণ’ গ্রন্থের জন্য যৌথভাবে পুরস্কার পেয়েছেন মিজানুর রহমান বেলাল ও হোসনে আরা জাহান। কথাসাহিত্যে ‘এই বেশ আতংকে আছি’ গ্রন্থের জন্য তাপস রায়; প্রবন্ধ, গবেষণা ও নাটক বিভাগে ‘নৃত্যকী’ গ্রন্থের জন্য আলতাফ শাহনেওয়াজ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সাহিত্যে ‘মুক্তিযুদ্ধের অজানা ভাষ্য’ গ্রন্থের জন্য মামুন সিদ্দিকী এবং শিশু-কিশোর সাহিত্যে ‘হরিপদ ও গেলিয়েন’ গ্রন্থের জন্য রাজিব হাসান পুরস্কার অর্জন করেছেন।

৩০ জানুয়ারি, মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। ইমেরিটাস শিক্ষক অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র গবেষক ড. মার্টিন ক্যাপসন, কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামবেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটু এবং কালি ও কলম পত্রিকার সম্পাদক আবুল হাসনাত

জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘কবি ও লেখকরা হলো ফুলের মতো, তাদের স্পর্শে এলে সুবাসিত হয়ে ঘরে ফেরা যায়। আমার মতো যারা মাঠপর্যায়ের রাজনীতিক, তাদের কাছে এলে কেবল সঙ্কুচিত হয়ে যেতে হয়।’

প্রাচীন কবি আলাওলকে স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, ‘চারশ’ বছর এ বাংলা কে শাসন করেছে, জাতি তা মনে না রাখলেও, কবি আলাওলকে ঠিকই সবাই মনে রেখেছেন। আজ থেকে পাঁচশ’ বছর পর আমাকে কেউ মনে না রাখলেও, হয়তো আজকের পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি-লেখকদের লেখা মনে রাখবেন, তাদের নামও।

বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটু গত পনেরো বছর যাবৎ ‘কালি ও কলম‘ সাহিত্যপত্রিকা নিরবচ্ছিন্নভাবে প্রকাশিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ ছাড়াও দশ বছর যাবৎ নিয়মিতভাবে এ পুরস্কার প্রথা চালু থাকায় সবাইকে শুভেচ্ছা জানান তিনি।

বিশিষ্ট জার্মান রবীন্দ্র গবেষক ড. মার্টিন ক্যাপসন বক্তব্য রাখেন বাংলায়। পুরস্কারপ্রাপ্তদের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করে তিনি বলেন, ‘সাহিত্যিকদের কাজ হলো সমাজের সেবা করা। সে কাজটি আপনারা ভালো করে করতে পারবেন বলে আমি মনে করি।’

অনুষ্ঠানে পুরস্কারপ্রাপ্তদের ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট এবং এক লাখ টাকা পুরস্কার প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের নবীন কবি-লেখকদের সাহিত্যচর্চা ও সাধনাকে গতিময় এবং তরুণদের সৃজনধারাকে সঞ্জীবিত করার লক্ষ্যে এইচএসবিসির সহায়তায় ২০০৮ সাল থেকে প্রবর্তিত হয় ‘কালি ও কলম’ পুরস্কার। ২০১৪ সাল থেকে কালি ও কলম এককভাবেই এ পুরস্কার প্রদান করে আসছে।

Leave a Reply